ঢাকা, , ২৮ চৈত্র ১৪২৭ আপডেট : কিছুক্ষণ আগে

করোনা শনাক্তের ১ বছর: অর্থনৈতিক মন্দা কাটিয়ে ওঠায় সাফল্য

  বিশেষ প্রতিবেদক :-

  প্রকাশ : 

করোনা শনাক্তের ১ বছর: অর্থনৈতিক মন্দা কাটিয়ে ওঠায় সাফল্য

দেশে করোনাভাইরাস শনাক্তের এক বছর পূর্তি হলো আজ। করোনাসৃষ্ট দুর্যোগকালে আমাদের অর্থনৈতিক যে ক্ষতি হতে পারে বলে দেশি-বিদেশি বিশেষজ্ঞ পূর্বাভাস দিয়েছিল সরকারের দ্রুত কিছু পদক্ষেপের কারণে তা হয়নি। এমনকি ক্ষতি অনেকটাই কাটিয়ে ওঠা সম্ভব হয়েছে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্ট বিশেষজ্ঞরা।  

পাশাপাশি করোনা পরবর্তী স্থবির হয়ে পড়া দেশি-বিদেশি বিনিয়োগ আকর্ষণ, শ্রমবাজারে নতুন প্রবেশকারীদের জন্য কর্মসংস্থান তৈরির প্রতি বাড়তি মনোযোগ দিতে হবে বলেও তারা জানান।


করোনাভাইরাস অর্থনীতিতে এক মহাবিপর্যয় ডেকে আনে। চীনে প্রথম ভাইরাসটি শনাক্ত হলেও গত বছর ৮ মার্চ বাংলাদেশে প্রথম করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগী চিহ্নিত হয়। এই এক বছর বিশ্ব অর্থনীতির মন্দা প্রভাব বাংলাদেশের অর্থনীতির উপরও পড়েছে। আন্তর্জাতিক দাতা সংস্থা বিশ্ব ব্যাংক ও আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল (আইএমএফ) সহ অন্যান্য সংস্থা আশঙ্কা প্রকাশ করেছিল বাংলাদেশের অর্থনীতিতে বড় ধরনের ধাক্কা লাগবে। কাঙ্ক্ষিত প্রবৃদ্ধি অর্জন করা সম্ভব হবে না। তবে এ বিষয়ে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল দাতা সংস্থাগুলোর আগাম শঙ্কার বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়ে বলেছেন, করোনাভাইরাস বিশ্ব অর্থনীতিকে প্রবলভাবে নাড়া দিয়েছে, তার কিছুটা প্রভাব আমাদের অর্থনীতিতেও পড়বে। তবে দাতা সংস্থাগুলো যতটা বলছে ততটা নয়। বাংলাদেশের অর্থনীতি ঘুরে দাঁড়াবে। 

অর্থনীতিবিদ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউট (পিআরআই)-এর নির্বাহী পরিচালক ড.হাসান এইচ মনসুর বলেন, করোনাভাইরাসের বর্ষপূর্তি হলো। এক বছরের সার্বিক অবস্থা বিশ্লেষণ করলে বলতেই হবে, দেশের ৯৯ শতাংশ মানুষ কোনো না-কোনোভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন। ভালো অবস্থায় কেউ ছিলেন না।  তবে যতটা ক্ষতির আশঙ্কা করা হয়েছিল ততটা হয়নি। ক্ষতি আরো ভয়াবহ হতে পারতো! 

আমাদের অর্থনীতির যতটা ক্ষতি হয়েছে তার প্রায় ৮০ শতাংশ রিকভার করা গেছে। বর্তমান অবস্থা বিরাজ থাকলে আগামী জুলাই-আগস্টের মধ্যে বাকিটা অর্জন করা সম্ভব হতে পারে বলে মনে করেন এই অর্থনীতিবিদ।

  • সর্বশেষ - অর্থনীতি