ঢাকা, , ২৭ আষাঢ় ১৪২৭ আপডেট : কিছুক্ষণ আগে

মার্সেল এসি কিনে আরেকটি ফ্রি ও নিশ্চিত ক্যাশব্যাক পাওয়ার সুযোগ

  একরাম হোসেন:-

  প্রকাশ : 

মার্সেল এসি কিনে আরেকটি ফ্রি ও নিশ্চিত ক্যাশব্যাক পাওয়ার সুযোগ

একটি এয়ার কন্ডিশনার বা এসি কিনলে গ্রাহকদের আরেকটি এসি সম্পূর্ণ ফ্রি দেওয়ার সুযোগ দিচ্ছে মার্সেল। ডিজিটাল ক্যাম্পেইন সিজন-৭ এর আওতায় এ সুযোগ দিচ্ছে প্রতিষ্ঠানটি। এর আওতায় দেশের যেকোনো মার্সেল শোরুম থেকে এসি কিনে আরেকটি ফ্রি পাওয়ার সুযোগ পাচ্ছেন ক্রেতারা। এছাড়া, সবার জন্য রয়েছে ১৫ থেকে ৫০ শতাংশ পর্যন্ত নিশ্চিত ক্যাশব্যাক।

এ উপলক্ষে সোমবার (৮ জুন, ২০২০) রাজধানীতে মার্সেলের করপোরেট অফিসে আয়োজন করা হয় ডিক্লারেশন প্রোগ্রাম। এতে জানানো হয়, মার্সেল এসিতে দেওয়া হচ্ছে ফ্রি ইন্সটলেশন সুবিধা। ৮ জুন শুরু হওয়া এসব সুযোগ থাকছে ৩০ জুন, ২০২০ পর্যন্ত।

এসি ডিক্লারেশন প্রোগ্রামে উপস্থিত ছিলেন প্রতিষ্ঠানটির নির্বাহী পরিচালক ড. সাখাওয়াৎ হোসেন, ডেপুটি এক্সিকিউটিভ ডিরেক্টর শাহ আলম, অপারেটিভ ডিরেক্টর খোন্দকার শাহরিয়ার মুরশিদ, ডেপুটি অপারেটিভ ডিরেক্টর মফিজুর রহমান প্রমুখ।

মফিজুর রহমান জানান, অনলাইনে দ্রুত সর্বোত্তম বিক্রয়োত্তর সেবা দেওয়ার লক্ষ্যে সারা দেশে ডিজিটাল ক্যাম্পেইন চালাচ্ছে মার্সেল। এ পদ্ধতিতে ক্রেতার নাম, মোবাইল ফোন নম্বর এবং বিক্রি করা পণ্যের মডেল নম্বরসহ বিস্তারিত তথ্য মার্সেলের সার্ভারে সংরক্ষণ করা হচ্ছে। ফলে ওয়ারেন্টি কার্ড হারিয়ে ফেললেও দেশের যেকোনো মার্সেল সার্ভিস সেন্টার থেকে দ্রুত কাঙ্ক্ষিত সেবা পাচ্ছেন গ্রাহক। এ কার্যক্রমে ক্রেতাদের স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণে উদ্বুদ্ধ করতে উক্ত কার্যক্রম হাতে নিয়েছে মার্সেল।

মার্সেল এসিতে ১০০ শতাংশ ক্যাশব্যাক অথবা নিশ্চিত নগদ ছাড় সুবিধার পাশাপাশি চলছে ‘এক্সচেঞ্জ অফার’। এর আওতায় সারা দেশে মার্সেল শোরুমে যেকোনো ব্র্র্যান্ডের পুরনো এসি জমা দিয়ে ক্রেতারা ২৫ শতাংশ ছাড়ে মার্সেলের নতুন এসি কিনতে পারছেন। ইতোমধ্যে অসংখ্য গ্রাহক তাদের পুরনো এসি বদলে মার্সেলের নতুন এসি কিনেছেন।  

মার্সেলের হেড অব সেলস ড. সাখাওয়াৎ হোসেন বলেন, ‘দেশের বাজারে মার্সেল এসির গ্রাহকপ্রিয়তা ব্যাপক বেড়েছে। গ্রাহক চাহিদার কথা বিবেচনা করে সরকারি নির্দেশনা এবং যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলছে মার্সেলের বিক্রয় কার্যক্রম। এই পরিস্থিতিতে অসংখ্য গ্রাহকের উপকার করতে মার্সেল এসিতে বিশেষ সুবিধা ঘোষণা করা হয়েছে।’

মার্সেল এসির প্রকৌশলীরা জানান, দেশে নিজস্ব কারখানায় উচ্চ মান বজায় রেখে এসি তৈরি হচ্ছে। এসির মান উন্নয়ন ও ডিজাইন নিয়ে প্রতিনিয়ত গবেষণা করছেন দক্ষ ও মেধাবী আরঅ‌্যান্ডডি (গবেষণা ও উন্নয়ন) টিম। তারা মার্সেল এসিতে সংযুক্ত করছেন বিদ্যুৎসাশ্রয়ী সর্বাধুনিক প্রযুক্তি ও ফিচার। ফলে, মার্সেল বাজারে ছেড়েছে ১.৫ টন ও ২ টনের আইওটি বেজড ব্যাপক বিদ্যুৎসাশ্রয়ী স্মার্ট, ইনভার্টার ও আয়োনাইজার প্রযুক্তির এসি।

মার্সেল ইনভার্টার এসি ৬০ শতাংশ পর্যন্ত বিদ্যুৎসাশ্রয়ী। এসির কম্প্রেসরে ব্যবহৃত হচ্ছে বিশ্বস্বীকৃত সম্পূর্ণ পরিবেশবান্ধব এইচএফসি গ্যাসমুক্ত আর-৪১০এ এবং আর-৩২ রেফ্রিজারেন্ট। রয়েছে টার্বোমুড ও আয়োনাইজার প্রযুক্তি, যা দ্রুত ঠান্ডা করার পাশাপাশি রুমের বাতাসকে ধুলা-ময়লা ও ব্যাকটেরিয়া থেকে মুক্ত করে। ইভাপোরেটর এবং কন্ডেন্সারে মরিচারোধক গোল্ডেন ফিন কালার প্রযুক্তি ব্যবহার করায় মার্সেল এসি অনেক টেকসই ও দীর্ঘস্থায়ী।

কর্তৃপক্ষ জানায়, মার্সেলের প্রতিটি এসি আন্তর্জাতিক মানের টেস্টিং ল্যাব নাসদাত-ইউটিএস থেকে মান নিয়ন্ত্রণ সনদ পাওয়ার পরে বাজারজাত করা হয়। এরই ধারাবাহিকতায় এসিতে এক বছরের রিপ্লেসমেন্ট সুবিধা দিচ্ছে মার্সেল। পাশাপাশি ইনভার্টার এসির কম্প্রেসরে ১০ বছরের গ্যারান্টি ও নন-ইনভার্টার কম্প্রেসরে ৫ বছরের গ্যারান্টি সুবিধা রয়েছে।

গ্রাহকদের দ্রুত বিক্রয়োত্তর সেবা পৌঁছে দিতে আইএসও সনদপ্রাপ্ত সার্ভিস ম্যানেজমেন্ট সিস্টেমের আওতায় সারা দেশে মার্সেলের রয়েছে ৭৪টি সার্ভিস সেন্টার। এসব সেন্টারে কাজ করছেন আড়াই হাজারের বেশি সার্ভিস এক্সপার্টস।

  • সর্বশেষ - অর্থনীতি