ঢাকা, , ২৮ আষাঢ় ১৪২৭ আপডেট : কিছুক্ষণ আগে

দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধি: ৫৬ ব্যবসায়ীকে ৮ লাখ টাকা জরিমানা

দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধি: ৫৬ ব্যবসায়ীকে ৮ লাখ টাকা জরিমানা

করোনাভাইরাসের আতঙ্কের মধ্যে অধিকমূল্যে নিত্যপ্রয়োজনীয়পণ্য বিক্রি করায় শুক্রবার দেশের বিভিন্নস্থানে ভ্রাম্যমাণ আদালত অভিযান চালিয়ে ৫৬ জন ব্যবসায়ীকে প্রায় ৮ লাখ টাকা জরিমানা করেছেন।

যে কোনো মুহূর্তে দেশ লকডাউন হতে পারে- এমন গুজরে অনেকে দৈনিক বা সাপ্তাহিক প্রয়োজনের অতিরিক্ত পেঁয়াজ, চাল, ডালসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের মজুত করতে শুরু করেছেন। আর এই সুযোগ কাজে লাগিয়ে অধিক মুনাফা করতে চাচ্ছে ব্যবসায়ীরা।

তবে দ্রব্যমূল্য স্থিতিশীল রাখতে এই অভিযান অব্যাহত থাকবে বলে জানিয়েছে প্রশাসন।

টাঙ্গাইল:
সকালে টাঙ্গাইল জেলা শহরের একমাত্র পাইকারি বাজার পার্ক বাজারে অভিযান পরিচালনা করা হয়। জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের সিনিয়র সহকারী কমিশনার (ভূমি অধিগ্রহণ কর্মকর্তা) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সুখময় সরকার র‌্যাব-১২ এর সহযোগিতায় অভিযান পরিচালনা করেন।

অধিকমূল্যে বিক্রির কারণে নয়জন পেঁয়াজ ব্যবসায়ীকে ১০ হাজার টাকা করে; একজন চাল ব্যবসায়ীকে ২০ হাজার টাকা ও মূল্যতালিকা না রাখায় তিনজন দোকানিকে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

জরিমানাপ্রাপ্তরা হলেন, চাঁন মিয়া, আক্তার হোসেন, সোহেল মিয়া, গোবিন্দ সরকার, সবুজ মিয়া, হাসু মিয়া, আকমল হোসেন, জোয়াহের আলী, সেকান্দার হোসেন, সিদ্দিকুর রহমান, মোসলেম উদ্দিন, জাহাঙ্গীর হোসেন এবং আমিনুল ইসলাম।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সুখময় সরকার বলেন, বাজারে পর্যাপ্ত পণ্যের সরবরাহ রয়েছে। কিছুর অভাব নেই। তারপরও পেঁয়াজ ব্যবসায়ীরা ৪০ টাকা কেজিতে কিনে ৮০ টাকায় বিক্রি করছেন। প্রতি কেজি চালের ক্রয়মূল্য ৩৫ টাকা সত্ত্বেও ৪৫ টাকা বিক্রি করছেন।

জেলা প্রশাসন আজ থেকে মাঠে থাকবে এবং নিয়মিত বাজার মনিটরিংয়ের পাশাপাশি ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান চলবে বলে জানান তিনি।

জেলার অন্যান্য উপজেলায়ও মনিটরিং অভিযান পরিচালনা করছে স্থানীয় প্রশাসন।

পিরোজপুর:
পিরোজপুর জেলা শহরের বাজারে অভিযান পরিচালনা করে ১২ জন ব্যবসায়ীকে ২৩ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. ইয়াসিন খন্দকার জানান, বৃহস্পতিবার দুপুরের পর থেকে জেলার বাজারগুলোতে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য বেশি দামে বিক্রি হতে দেখা যায়। এ নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আলোচনা হয়। আজ জেলা প্রশাসন থেকে পিরোজপুর বাজারে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হয়।

তিনি জানান, ১২ ব্যবসায়ীকে মোট ২৩ হাজার টাকা জরিমানা এবং ২৩ ব্যবসায়ীকে সতর্ক করা হয়।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ:
চাঁপাইনবাবগঞ্জের সদর ও ভোলাহাট উপজেলায় ভ্রাম্যমাণ আদালত অভিযান চালিয়ে ৬ ব্যবসায়ীকে ৩৯ হাজার টাকা জরিমানা করেছেন।

সদর উপজেলায় বেশি দামে পেঁয়াজ বিক্রি করায় সদরঘাট বাজারের একতা শস্য ভান্ডারকে ৩০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আলমগীর হোসেন এ জরিমানা করেন।

ভোলাহাট উপজেলায় নিত্যপণ্যের দাম বৃদ্ধি করায় ৫ ব্যবসায়ীকে জরিমানা করেন ভ্রামম্যাণ আদালতের বিচারক ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রাজিবুল আলম।

নরসিংদী: 
নরসিংদীর রায়পুরা উপজেলার শ্রীরামপুর ও রায়পুরা পুরান বাজারে অভিযান পরিচালনা করেন ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. মাহমুদুর রহমান খোন্দকার।

অভিযানে বেশি দামে পেঁয়াজ বিক্রি করায় মো. ইলিয়াসকে ৫ হাজার টাকা, মো.  আলাউদ্দিনকে ৫ হাজার টাকা, মোস্তফা মিয়াকে ১০ হাজার টাকা, শাহ আলমকে ১০ হাজার টাকা এবং বেশি দামে চাল বিক্রি করায় মো. খোকন মিয়াকে ২০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

কুমিল্লা:
কুমিল্লার লাকসাম উপজেলায় ১২ জন ব্যবসায়ীকে ৩ লাখ ৮৫ হাজার টাকা জরিমানা করেছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।

উপজেলার বাজারের মেসার্স নিতাই চালের আড়ৎকে এক লাখ টাকা, পুলিন বিহারী চালের আড়ৎকে এক লাখ টাকা, মেসার্স মা ট্রেডার্স চালের আড়ৎকে ৫০ হাজার টাকা, মেসার্স মাওলানা আবদুল মতিন চালের আড়ৎকে ২০ হাজার টাকা, মিয়াজান চালের আড়ৎকে ২০ হাজার টাকা, মেসার্স পুতুল সাহা চালের আড়ৎকে ২০ হাজার টাকা, মেসার্স হৃদয় স্টার চালের আড়ৎকে ২০ হাজার টাকা, মেসার্স সাহরাব স্টার আড়ৎকে ১৫ হাজার টাকা, মাসুম ব্রাদার্স চালের আড়ৎকে ১০ হাজার টাকা, মেসার্স আবুল কালামের চালের আড়ৎতে ১০ হাজার টাকা, নিতাই সাহার চালের আড়ৎতে ১০ হাজার টাকা এবং শংকর রায়র চালের আড়ৎকে  ১০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

লাকসাম উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট এ কে এম সাইফুল আলম জানান, কয়েক দিন ধরে চালসহ নিত্যপণ্যের মূল্যবৃদ্ধি ও গুদামজাত করার খবর পেয়ে অভিযান পরিচালনা করা হয়।

পাবনা:
পণ্যের দাম বেশি নেয়া হচ্ছে এমন অভিযোগে বাজার তদারকিমুলক অভিযানে নেমেছে প্রশাসনও।  জেলার ঈশ্বরদীতে ভোগ্যপণ্যের দাম বেশি নেওয়ায় আটটি প্রতিষ্ঠানকে দেড় লাখ টাকা জরিমানা করেছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।

করোনা ভাইরাসকে পুঁজি করে নিত্যপণ্যের দাম বাড়ানো হয়েছে এমন অভিযোগে ভিত্তিতে সকালে ঈশ্বরদী পৌর সদরের চাল ব্যবসায়ী, হোটেল রেস্টুরেন্ট ও কাঁচামালের আড়তে এসব অভিযান পরিচালনা করেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মমতাজ মহল।

অভিযানে দাম বেশি নেওয়ায় চাল ব্যবসায়ী মোসলেম উদ্দিনকে ৫০ হাজার টাকা, কাঁচামালের আড়তের চার ব্যবসায়ীকে ৫০ হাজার ৫০০ টাকা এবং তিনটি হোটেল-রেস্টুরেন্টকে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করেন।

অভিযান পরিচালনার সময় টের পেয়ে বাজারের প্রাচীণতম আনন্দ দত্তের আড়তের কাঁচামাল ব্যবসায়ীরা তাদের মালামাল ফেলে পালিয়ে যান। ব্যবসায়ীদের গ্রেপ্তারের নির্দেশ দিয়ে আড়তে পুলিশ মোতায়েন করেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট।

  • সর্বশেষ - সারাদেশ