ঢাকা, , ২৫ চৈত্র ১৪২৬ আপডেট : কিছুক্ষণ আগে

বঙ্গবন্ধু গত শতাব্দীর মহান ব্যক্তিত্বদের মধ্যে অন্যতম: মোদি

বঙ্গবন্ধু গত শতাব্দীর মহান ব্যক্তিত্বদের মধ্যে অন্যতম: মোদি

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে বিশ্বনেতারা ভিডিও বার্তার মাধ্যমে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন।  এর মধ্যে প্রতিবেশী দেশ ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে ‘মুক্তির মহানায়ক’ শীর্ষক অনুষ্ঠানে এক ভিডিও বার্তায় বলেন, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জীবন একবিংশ শতাব্দীর বিশ্বের জন্য এক মহান বার্তা। বাংলাদেশকে একটি ইতিবাচক ও প্রগতিশীল সমাজে পরিণত করার জন্য তিনি তার জীবনের প্রতিটি মুহূর্ত উৎসর্গ করেছিলেন।

৩০ কোটি ভারতীয় ভাই-বন্ধুদের পক্ষ থেকে অনেক অনেক অভিনন্দন ও শুভ কামনা জানিয়ে বাংলা ভাষায় মোদি বলেন, শেখ হাসিনা আমাকে ব্যক্তিগতভাবে এই ঐতিহাসিক সমারোহে অংশ নিতে আমন্ত্রণ জানিয়েছিলেন।  কিন্তু করোনা ভাইরাসের কারণে আমার পক্ষে অংশ নেওয়া সম্ভব হয়নি।  পরে তিনি নিজেই একটি বিকল্প প্রস্তাব দেন।  সে কারণে আমি এই ভিডিওর মাধ্যমে আপনাদের সঙ্গে সংযুক্ত হয়েছি।

বঙ্গবন্ধুকে গত শতাব্দীর মহান ব্যক্তিত্বদের মধ্যে অন্যতম উল্লেখ করে মোদি বলেন, বঙ্গবন্ধু মানে—একজন সাহসী নেতা, একজন দৃঢ়চেতা মানুষ, একজন ঋষিতুল্য শান্তিদূত, একজন ন্যায়, সাম্য ও মর্যাদার রক্ষাকর্তা একজন পাশবিকতা বিরোধী এবং যে কোনো জোরজুলুমের বিরুদ্ধে ঢাল।  তার এই গুণ লাখ লাখ তরুণকে বাংলাদেশের মুক্তির জন্য সমস্ত প্রতিকূলতার মুখোমুখি হতে নতুন শক্তি দিয়েছিল।  আজ আমার খুব ভালো লাগে, যখন দেখি যে বাংলাদেশের মানুষ তাদের প্রিয় দেশকে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের ‘সোনার বাংলায়’ রূপান্তরিত করার জন্য দিন-রাত কাজ করে চলেছেন।

মোদি বলেন, গত ৫-৬ বছরে ভারত এবং বাংলাদেশ দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের একটি সোনালী অধ্যায় রচনা করেছে।  উভয় দেশের মধ্যে আস্থার কারণেই আমরা স্থল ও সমুদ্র সীমানার মতো জটিল সমস্যাগুলো সহজে সমাধান করতে পেরেছি।

তিনি আরও বলেন, আমাদের যৌথ ঐতিহ্য রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর, কাজী নজরুল ইসলাম,ওস্তাদ আলাউদ্দিন খাঁ, লালন শাহ, জীবনানন্দ দাশ এবং ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগরের মতো মনীষীরা। বঙ্গবন্ধুর উত্তরাধিকার ও অনুপ্রেরণা আমাদের এই ঐতিহ্যকে আরও বিস্তৃত করেছে। তার আদর্শ ও মূল্যবোধের সাথে ভারত সবসময় সংযুক্ত ছিল। ভারত ও বাংলাদেশের মধ্যকার গভীর সম্পর্ক স্থাপিত হয়েছে এই এই অভিন্ন ঐতিহ্যের ভিত্তিতে। আমাদের এই ঐতিহ্য, আত্মিক বন্ধন, বঙ্গবন্ধুর দেখানো পথ, এই দশকেও দুই দেশের অংশীদারিত্ব, অগ্রগতি এবং সমৃদ্ধির এক শক্তিশালী ভিত্তি।

  • সর্বশেষ - সারাবিশ্ব