মুক্তিসংগ্রাম এ মাদারীপুরে শাজাহান খানের নেতৃত্বে থানা লুট হয়

0
179

বাংলাদেশের রাজনীতির রহস্যপুরুষ সিরাজুল আলম খান। মহান মুক্তিসংগ্রাম থেকে শুরু করে রাজনীতির নানা অধ্যায়ে তার ভূমিকা ছিল গুরুত্বপূর্ণ। সিরাজুল আলম খানের জবানবন্দিতে লেখা ‘আমি সিরাজুল আলম খান’ বইয়ে ওঠে এসেছে রাজনীতির নানা বিচিত্র অধ্যায়।

বঙ্গবন্ধু সরকারের বিরুদ্ধে জাসদের আন্দোলনের বর্ণনা দিয়ে তিনি বলেছেন, বঙ্গবন্ধু সরকারকে পদত্যাগে বাধ্য করার কৌশলের অংশ হিসেবে দেশের ৪০টি স্থান ঘাঁটি আকারে গড়ে তোলার জন্য নির্দিষ্ট করা হয়। জনসভা ও মিছিলকে প্রধান অস্ত্র হিসেবে গ্রহণ করা হয়।

দেশজুড়ে মিছিল-সমাবেশ চলতে থাকে।’৭৪ সালের অক্টোবর-নভেম্বরে আওয়ামী লীগ সরকারকে পদত্যাগে বাধ্য করার সময় নির্ধারণ করে আন্দোলনের এ পর্যায়ে সে বছর ১৭ই মার্চ ঢাকায় বড় জনসভা করে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর কাছে স্মারকলিপি দেয়ার সিদ্ধান্ত হয়। সেদিন পল্টনে বিশাল জনসভা শেষে মেজর জলিল ও আ স ম রবের নেতৃত্বে মন্ত্রীপাড়ায় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মনসুর আলীর বাসার সামনে উপস্থিত হয়। তার দাবি মিছিলটি ছিল একেবারেই শান্তিপূর্ণ। কিন্তু কোনো রকম উসকানি ছাড়া পুলিশ ও রক্ষী বাহিনী বেপরোয়া গুলিবর্ষণ করলে ১১ জন কর্মী নিহত হন।

মেজর জলিল ও আ স ম রব গ্রেপ্তার হন।

বিভিন্ন বাহিনীর সংঘবদ্ধ আক্রমণ সহ্য করা নিরস্ত্র কর্মীদের পক্ষে সম্ভব ছিল না। জাসদ কর্মীরা কিংকর্তব্যবিমূঢ় অবস্থায় পড়ে। আন্দোলনে ভাটা পড়ে। এ অবস্থায় সরকারকে পদত্যাগে বাধ্য করার আন্দোলন কর্মসূচি পরিবর্তন করা হয়। মুক্ত নেতারা আন্ডারগ্রাউন্ডে চলে যান। প্রকাশ্য রাজনীতি সীমিত হয়ে আসতে থাকে। দলের তরফে এ সময় গোপন রাজনীতির ওপর গুরুত্ব দেওয়া হয়। গ্রামপর্যায়ে কৃষকদের সমর্থন লাভের জন্য স্বেচ্ছাসেবক বাহিনী গঠন করা হয়। কৃষকদের সহায়তা দিয়ে তাদের সমর্থন পেতে থাকে। এতে স্বেচ্ছাসেবক বাহিনীর ওপর নির্যাতন শুরু হয়। মামলা হতে থাকে। কোথাও কোথাও রক্ষী বাহিনীর সঙ্গে সংঘর্ষ হয়। সে সময় আত্মরক্ষার জন্য স্বেচ্ছাসেবক বাহিনী কোথাও কোথাও রক্ষী বাহিনীর কাছ থেকে অস্ত্র কেড়ে নিয়ে তিনটি থানার অস্ত্র লুট করে। মাদারীপুরে শাজাহান খানের নেতৃত্বে থানা লুট হয়। প্রসঙ্গত, অনেক বছর পরে তিনি শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন আওয়ামী লীগ সরকারের মন্ত্রী হন।

সিরাজুল আলম খানের বয়ান অনুযায়ী, প্রশাসনের কাছে ও মানুষের কাছে এটি প্রথমে ‘গণবাহিনী’ ও পরে বিপ্লবী গণবাহিনী হিসেবে পরিচিতি পেতে থাকে। যদিও জাসদের ‘সিওসি’ বা কেন্দ্রীয় কমিটি কখনো এ নামের কোনো সংগঠন প্রতিষ্ঠা করেনি কিংবা করার অনুমতি দেয়নি। এটি ছিল জাসদ সম্পর্কিত গণবিভ্রান্তির একটি উদাহরণ। ’৭৬ সালের সেপ্টেম্বরে সিওসির শেষ মিটিংয়ে গণবাহিনীর কার্যক্রম বন্ধ করে দেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়। স্বেচ্ছাসেবক বাহিনীর কিছু সদস্য কিছু কিছু অঘটন ঘটিয়েছে। যার মধ্যে থানা আক্রমণ ও বিত্তশালীদের কাছ থেকে জোর করে অর্থ আদায়ের ঘটনা ঘটেছে। হোটেল ইন্টারকন্টিন্যান্টালে বিস্ফোরণ, বায়তুল মোকাররমে সাইকেল বোমা, বাসে যাত্রী নামিয়ে আগুন লাগানো, জিয়াউল আবেদীন হত্যা ও ভারতীয় হাইকমিশনারের ওপর সশস্র আক্রমণ ঘটানো হয়েছিল।

সিরাজুল আলম খান বলেন, গণঅভ্যুত্থানের পরিস্থিতি সৃষ্টি না হওয়ায় আমরা রাজনীতির ভিন্ন পরিকল্পনা গ্রহণ করি। এর মধ্যে প্রধান হলো- সেনাবাহিনীর অভ্যন্তরে ‘বিপ্লবী সৈনিক সংস্থা’ গড়ে তোলা। ’৭৩ সালের মাঝামাঝি থেকে জাসদ সভাপতি মেজর জলিলের নেতৃত্বে ঢাকা ক্যান্টনমেন্টর প্রায় সব ইউনিটে এবং বগুড়া ক্যান্টনমেন্টে বিপ্লবী সৈনিক সংস্থা গড়ে ওঠে। ঢাকার চারপাশে প্রায় ৪০টি স্থানে ঘাঁটি গঠন এবং ঢাকাসহ জেলা ও মহকুমা শহরে গণবিস্ফোরণমূলক আন্দোলন গড়ে তুলে সরকারের পতন ঘটানোর চেষ্টা ব্যর্থ হয়ে যাওয়ার পর ক্ষমতা দখলে ভিন্ন পরিকল্পনা নেওয়া হয়। সেটি হলো- সেনাবাহিনীর মধ্যে বিপ্লবী সৈনিক সংস্থার নেতৃত্বে সেনাঅভ্যুত্থান ঘটিয়ে কেন্দ্রীয় ক্ষমতা দখল করা।

উৎসঃ মানবজমিন

Print Friendly, PDF & Email