জগন্নাথপুরে পূর্ব বিরোধের কারণে ডাকাতির চেষ্টা

0
77

জগন্নাথপুর (সুনামগঞ্জ) প্রতিনিধি: সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুরে পূর্ব বিরোধের কারণে ডাকাতির চেষ্টার অভিযোগ পাওয়া গেছে। জানা গেছে, গত বুধবার রাত ১১ টার দিকে জগন্নাথপুর উপজেলার পাটলি ইউনিয়নের রসুলপুর-লাউতলা গ্রামের বাসিন্দা মুহিব মিয়ার বাড়িতে ১০/১২ জনের ডাকাতদল হানা দেয়। এ সময় এলাকার মসজিদে মাইকিং করা হলে গ্রামের লোকজন সমবেত হয়ে ডাকাতদের ধাওয়া করে গ্রামের যুক্তরাজ্য প্রবাসি মিজানুর রহমানের বাড়ি থেকে রসুলপুর-লাউতলা গ্রামের চান মিয়ার ছেলে এলাকার চিহিৃত ডাকাত হিরা মিয়া (৩০) ও উপজেলার কলকলিয়া ইউনিয়নের সুনুয়াখাই গ্রামের কদর আলীর ছেলে কয়রুল ইসলামকে (৫৫) আটক করে থানা পুলিশে সোপর্দ করেন। তবে গত রোববার রাত প্রায় দেড়টার দিকে জগন্নাথপুর উপজেলার রাণীগঞ্জ ইউনিয়নের নারিকেলতলা ব্রাম্মনগাঁও গ্রামের নীল চন্দ্র দাসের বাড়িতে ডাকাতির ঘটনা ঘটে। এ সময় ১০/১৫ জনের ডাকাতদল হানা দিয়ে পরিবারের নারী-শিশুসহ ৭ জনকে মারপিট করে নগদ টাকা, স্বর্ণালঙ্কার, মোবাইলসেটসহ প্রায় ১০ লক্ষ টাকার মালামাল লুটপাট করে নিয়ে যায়। এ ঘটনায় সুবোধ রঞ্জন দাস বাদি হয়ে অজ্ঞাতনামা আসামিদের বিরুদ্ধে থানায় ডাকাতি মামলা দায়ের করেন। মামলা নং ৩, তাং ১৩/১০/২০১৫ ইং। এ মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে জগন্নাথপুর উপজেলার পাটলি ইউনিয়নের রসুলপুর-লাউতলা গ্রামের বাসিন্দা মুহিব মিয়ার বাড়িতে ডাকাতির প্রস্তুতিকালে জনতা কর্তৃক ধৃত ডাকাতি, ডাকাতির প্রস্তুতি, ধর্ষণ, হত্যাসহ বিভিন্ন মামলার আসামি এলাকার চিহিৃত ডাকাত হিরা মিয়া ও কয়রুল ইসলামকে সুনামগঞ্জ জেল হাজতে প্রেরণ করে থানা পুলিশ।

গৃহকর্তা মুহিব মিয়া জানান, জায়গা-জমি নিয়ে গ্রামের যুক্তরাজ্য প্রবাসি মিজানুর রহমানের সাথে র্দীঘদিন ধরে আমাদের বিরোধ চলছে। এই আক্রোশে ডাকাতদের এনে আমাদের বাড়ি ডাকাতি করার চেষ্টা করা হয়েছিল। এর প্রমাণ হচ্ছে গ্রামবাসি প্রবাসি মিজানুর রহমানের ঘর থেকে এলাকার চিহিৃত ডাকাত হিরা ও কয়রুলকে আটক করে পুলিশে দিয়েছেন। যুক্তরাজ্যে চলে যাওয়ায় প্রবাসি মিজানুর রহমানের সাথে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি। জগন্নাথপুর থানার অফিসার ইনচার্জ আসাদুজ্জামান জানান, ধৃত ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে থানায় পূর্বের ডাকাতি, ডাকাতির প্রস্তুতি, ধর্ষণসহ বিভিন্ন মামলা রয়েছে। তাদেরকে পূর্বের মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে সুনামগঞ্জ জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।

Print Friendly, PDF & Email